বুধবার,  ২১ অক্টোবর ২০২০  | সময় লোডিং...
প্রকাশ : ২৬ আগস্ট ২০১৯, ০৯:১৮:২৭

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোকে সরকার আর টাকা দেবে না: অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জানিয়েছেন, এখন থেকে রাষ্ট্রমালিকানাধীন ব্যাংকগুলোকে সরকারি কোষাগার থেকে কোনো মূলধন দেওয়া হবে না।
তিনি বলেন, ‘রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক, সোনালী, রূপালী, জনতা ও অগ্রণী ব্যাংককে সরকারের পক্ষ থেকে নতুন করে আর কোনো মূলধন দেওয়া হবে না। তাদের মুনাফা করেই বেতন নিতে হবে। আর মুনাফার সর্বনিম্ন হার হতে হবে ১৫ শতাংশ। আগে প্রতি অর্থবছরে ঘাটতি পূরণের জন্য রাষ্ট্রায়ত্ত এ চার ব্যাংককে অর্থ দিতো সরকার।’
রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কক্ষে গতকাল রবিবার রাষ্ট্রমালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালকদের (এমডি) সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকের পর এক ব্রিফিংয়ে অর্থমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
বৈঠকে তিনি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে নতুন নিয়োগ পাওয়া এমডিদের তাদের কর্মপরিকল্পনা আগামী রবিবার অর্থ মন্ত্রণালয়ে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ঘাটতি পূরণের জন্য ব্যাংকগুলোকে এত দিন টাকা দেওয়া হলেও এখন তা অতীত। তাদের আয় করতে হবে এবং দেশের মানুষকে দেখাশোনা করেই বেতন নিতে হবে। ১০ বছরে সোনালী, অগ্রণী, জনতা, রূপালী, বেসিক ও বিডিবিএল মূলধন ঘাটতি পূরণে সরকারি কোষাগার থেকে ১৫ হাজার কোটি টাকার মতো নিয়েছে।’ 
রাষ্ট্রায়ত্ত চারটি ব্যাংক বাংলাদেশের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর ২৫ শতাংশ নিয়ন্ত্রণ করে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘তাদের যে সম্পদ আছে, তার সুষ্ঠু ব্যবহার করে অন্তত ১৫ শতাংশ লাভ করুক, এটা চায় সরকার।’
তিনি আরো লেন, ‘আমরা চারটি ব্যাংককে আমন্ত্রণ জানিয়েছি। তারা অনেক বড়। আমাদের বৃহত্তর চারটি ব্যাংক তারা। তাদের যে অবস্থান ব্যাংক খাতে, এই চারটি ব্যাংক চাইলেই সার্বিকভাবে আমাদের ব্যাংক খাতকে বেগবান রাখতে পারে।’
এই ব্যাংকগুলোর শীর্ষ পর্যায়ে নুতন নিয়োগের বিষয়ে মুস্তফা কামাল বলেন, ‘নতুন টপ ম্যানেজমেন্ট সুস্পষ্টভাবে পারদর্শী। তারা সবাই যদি অভিজ্ঞতার আলোকে ও দেশের চাহিদার নিরীখে এবং আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় নিয়ে ব্যাংক পরিচালনা করে, তাহলে অসাধারণ কিছু প্রত্যাশা করা যায়।’
ব্যাংকগুলোর মন্দ ঋণ (এনপিএল) কমানোর প্রতিশ্রুতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মন্দ ঋণ এখনো কমাতে পারি নাই। কারণ আমরা এক্সিটপ্ল্যান বাস্তবায়ন করতে পারি নাই। তবে শিগগির এটির সুরাহা হবে বলে আমার বিশ্বাস।’
সুদের হার এক অঙ্কে নামানোর বিষয়ে কয়েক দিন আগে বাংলাদেশ ব্যাংককে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। বাজার অর্থনীতিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে দিয়ে এভাবে প্রজ্ঞাপন জারি করানো যায় কি না, জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘যায়। কারণ, বাজার অর্থনীতির বড় প্রবক্তা হলো যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু আমরা কী দেখলাম? যুক্তরাষ্ট্রও জরুরি প্রয়োজনে ডলার ছাপিয়েছে। এটা তাহলে কোন বাজার অর্থনীতির মধ্যে পড়ে?’ 
এই পাতার আরো খবর
সর্বশেষ সংবাদসর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: ইলিয়াস উদ্দিন পলাশ

প্রকাশক: নাহিদা আকতার জাহেদী

১০/২২ ইকবাল রোড, ব্লক এ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

Powered by orangebd.com